Foto

আন্দোলন হলেই সড়ক আইন নিয়ে তোড়জোড়


সংসদে পাসের ছয় মাস পরও বহুল আলোচিত 'সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮' প্রয়োগ ও বাস্তবায়নের অনেক ধাপ এখনও বাকি। বিধিমালা প্রণয়নের পর আইনটি প্রয়োগ শুরু হবে। বিধিমালা প্রণয়নে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে তিন মন্ত্রীর সমন্বয়ে কমিটি গঠন করা হয়। মাস পেরুলেও এই কমিটি এখনও প্রথম বৈঠকই করতে পারেনি।


পরিবহন খাত সংশ্নিষ্টরা বলছেন, আন্দোলন ছাড়া সড়ক পরিবহন আইন কখনই গতি পায়নি। আলোচিত দুর্ঘটনায় প্রাণহানিতে যখনই নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন হয়েছে, শুধু তখনই আইনটির বিষয় আলোচনায় এসেছে। পরিস্থিতি শান্ত হলে ফের থমকে গেছে।

গত বছরের জুলাইয়ে রাজধানীর খিলক্ষেতে বেপরোয়া বাসের চাপায় দুই কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে আট বছর ঝুলে থাকা সড়ক পরিবহন আইনের খসড়া এ ঘটনার সাত দিনের মধ্যে মন্ত্রিসভার চূড়ান্ত অনুমোদন পায়।

সড়কের নিরাপত্তা নিয়ে দেশজুড়ে তুমুল আলোচনার মধ্যেই সাজা ও জরিমানা আগের তুলনায় কয়েক গুণ বাড়িয়ে গত ১৯ সেপ্টেম্বর সংসদে পাস হয় সড়ক পরিবহন আইন। দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সাজা তিন বছরের জেল থেকে বাড়িয়ে পাঁচ বছর করা হয়। ৩০২ ধারায় বিচার, অর্থাৎ ইচ্ছাকৃত হত্যা প্রমাণ হলে মৃত্যুদণ্ডের সুযোগ রাখা হয়। বেপরোয়া গাড়ি চালালে দুই বছরের জেল, ভুয়া লাইসেন্সের জন্য এক বছরের জেলের বিধান করা হয়। সড়কে দুর্ঘটনার জন্য দায়ী কর্মকর্তাদেরও শাস্তির আওতায় আনার সুযোগ রয়েছে আইনে। নাগরিক সমাজের প্রশংসা পাওয়া আইনটি গত বছরের ৮ অক্টোবর গেজেট হয়। কিন্তু বিধিমালা না হওয়ায় কার্যকর হয়নি।

আইনটি বাস্তবায়নে গত মাসে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ও রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন কমিটির সদস্য। তাদের দায়িত্ব বিধিমালা প্রণয়ন করা। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সড়ক নিরাপত্তা কাউন্সিলের ২৬তম সভায় এ কমিটি গঠনের সময় সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন, বিধি প্রণয়নসহ বাস্তবসম্মত সংশোধনের দিকগুলো দেখবেন তিন মন্ত্রী।

তবে এখন পর্যন্ত বৈঠকে বসেনি ওই কমিটি। রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন সমকালকে বলেছেন, তাকে কমিটিতে সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে। এখনও বৈঠক ডাকা হয়নি। ডাক পেলে যাবেন। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, কমিটির বৈঠক না হলেও বিধিমালা প্রণয়নের কাজ শুরু হয়েছে। কবে নাগাদ এ কাজ শেষ হবে, তা বলেননি তিনি।

বিআরটিএ সূত্রের খবর, দুই বছর পর্যন্ত লাগতে পারে। ইতিমধ্যে পরিবহন মালিক-শ্রমিক নেতারা আইনটি শিথিল করতে দাবি তুলেছেন। আইনের অনেক সাজাকে খুব বেশি কঠোর বলছেন তারা। সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, পরিবহন নেতাদের ’চাপে’ কার্যকরের আগেই সংশোধন হতে পারে বহুল আলোচিত পরিবহন আইন। বিধিমালাতেও কিছু ছাড় আসতে পারে তাদের জন্য।

বিধিমালা না হওয়া পর্যন্ত ৩৬ বছরের পুরনো মোটরযান অধ্যাদেশ-১৯৮৩ দিয়ে চলবে দেশের পরিবহন খাত। নতুন আইনের বর্ধিত সাজা ও জরিমানা ভোগ করতে হবে না দায়ীদের। সড়ক পরিবহন আইনের ১২৫ (৪) ধারায় বলা হয়েছে, ’এই আইনের অধীন বিধি বা প্রবিধান প্রণীত না হওয়া পর্যন্ত উক্ত অধ্যাদেশের (সড়ক পরিবহন অধ্যাদেশ-১৯৮৩) এর অধীন প্রণীত বিধি, প্রবিধান, আদেশ, নির্দেশাবলি, প্রজ্ঞাপন, ইত্যাদির কার্যকারিতা বলবৎ থাকিবে।’

হাইকোর্টের আইনজীবী মাহবুবুল আলম বলেন, নতুন আইন কার্যকর না হওয়ার মানে পুরনো আইনে বিচার হবে। গত মঙ্গলবার কুড়িলে যে বেপরোয়া বাসের চাপায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী নিহত হয়েছেন, তার চালক দুর্ঘটনার জন্য আদালতে অপরাধী প্রমাণিত হলেও তিন বছরের বেশি তাকে সাজা ভোগ করতে হবে না। নতুন আইন কার্যকর থাকলে তার পাঁচ বছর জেল হতে পারত। মোটা অঙ্কের জরিমানা দিতে হতো বাস মালিককে।

পরিবহন খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিআরটিএর চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান বলেন, আইনে কোন অপরাধে কী সাজা ও কত টাকা জরিমানা হবে তা নির্ধারণ করা হবে। আইনে চালক লাইসেন্সে ১২ পয়েন্ট রাখা হয়েছে। অপরাধ করলে পয়েন্ট কাটা যাবে। সব পয়েন্ট কাটা গেলে লাইসেন্স কাটা যাবে। কোন অপরাধে কত পয়েন্ট কাটা হবে, তা আইনে নেই। বিধিমালার মাধ্যমে নির্ধারণ করা হবে। আরও কিছু বিষয় রয়েছে যা বিধি দ্বারা নির্ধারণ করা হবে। তাই বিধিমালা না হওয়া পর্যন্ত আইন কার্যকর হবে না।

আইনের খসড়া প্রণয়নে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিত্ব করা একাধিক বিশিষ্ট ব্যক্তি সমকালকে বলেছেন, গত বছর নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সারাদেশ উত্তাল না হলে হয়ত দশম সংসদে আইনটি পাসই হতো না। পরিবহন নেতাদের চাপে আরও কয়েক বছর আটকে থাকত। সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে পরিবহন আইন তখনই আলোচনায় এসেছে, যখন বেপরোয়া গাড়ির চাপায় প্রাণহানির ঘটনা আলোচিত হয়েছে, আন্দোলন হয়েছে, গণমাধ্যমে শিরোনাম হয়েছে।

২০১০ সালে যুগোপযোগী সড়ক পরিবহন আইন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। গত আট বছরে চারবার আইনের খসড়া তৈরি করা হয়। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা কর্মবিরতি ও সাধারণ মানুষের তীব্র প্রতিক্রিয়ার পর সে সময় ২৭ মার্চ খসড়াটি মন্ত্রিসভার নীতিগত অনুমোদন পায়। আলোচনা থেমে যাওয়ার পর, প্রায় দেড় বছর চলে যায় আইন মন্ত্রণালয়ে, ছিল যাচাই-বাছাইয়ে। অভিযোগ আছে, পরিবহন খাতের নেতাদের চাপেই এত দীর্ঘ সময় লাগে।

সড়ক পরিবহন আইনে ১৪টি অধ্যায় ১২৬টি ধারা রয়েছে। সবচেয়ে আলোচিত ধারা ১০৩। এতে বলা হয়েছে, মোটরযান চালনাজনিত দুর্ঘটনায় গুরুতরভাবে কোনো ব্যক্তি আহত বা নিহত হলে ১৮৬০ সালের দণ্ডবিধির ৩০৪(খ) ধারায় যে শাস্তিই নির্ধারণ করা থাকুক না কেন দুর্ঘটনায় কেউ গুরুতর আহত বা নিহত হলে দায়ী ব্যক্তির অনধিক পাঁচ বছরের জেল বা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড হবে।

নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, তিনি চেয়েছিলেন অন্তত ১০ বছর কারাদণ্ডের বিধান রাখা হবে। কিন্তু যাই সাজা রাখা হয়েছে, আইনটি দ্রুত কার্যকর করা উচিত।

মালিক সংগঠন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেছেন, তারাও চান আইন কার্যকর হোক। আইন সংশোধনের দাবি সম্পর্কে তিনি বলেন, মালিক-শ্রমিকদের জন্য ক্ষতিকর যেসব দিক তারা চিহ্নিত করেছেন, বিধিমালা প্রণয়নের সময় তা তুলে ধরবেন।

Facebook Comments

" আইন ও বিচার " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ