Foto

হৃদরোগের ঝুঁকি এড়াতে করণীয়


মানসিক উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা, আবেগের আগ্রাসন, কাজের বাড়তি চাপ, জীবনযাপনের চাপ প্রভৃতি হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। ক্রমাগত মানবজীবনে আকাঙ্ক্ষা বেড়ে যাওয়া, কাজকর্মে তাড়াহুড়া, আধুনিক জীবনযাত্রায় নিত্যদিনের দুর্ভাবনা সরাসরি মানবদেহের রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়ায় (কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেম) প্রতিক্রিয়া ঘটায় বা প্রভাব ফেলে।


হৃদযন্ত্রকে যদি অশ্বের সঙ্গে তুলনা করা হয় তবে মনকে বলতে হবে এর চালক বা অশ্বারোহী। জীবনের দৌড়ে যদি গতি বাড়ানোর কাজ করে মন, তবে স্বাভাবিকভাবেই চাপ বাড়ে মনে এবং তার প্রভাবও পড়ে হৃদযন্ত্রে। আজকের মানুষ সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ছুটছে। স্বাভাবিকভাবেই এর জন্য তাকে চড়া দামও গুনতে হচ্ছে। ফলস্বরূপ অনেকেই আক্রান্ত হচ্ছেন হৃদরোগে। আর কোনোরকম পূর্বাভাস ছাড়াই যে কোনো সময় এটি কেড়ে নিতে পারে মানুষের জীবন। বেঁচে থাকার জন্য যেমন খাদ্যের প্রয়োজন পড়ে, তেমনি রোগাক্রান্ত হলে প্রয়োজন চিকিৎসার। তাই হৃদরোগের চিকিৎসা হিসেবে প্রচলিত বহুল আলোচিত দুটি পদ্ধতি- বাইপাস ও স্ট্যান্টিং। এ দুটিই অপারেশন। আর এই দুই পদ্ধতির চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল ও ঝুঁকিপূর্ণ। রোগী সুস্থও হচ্ছেন; কিন্তু বেঁচে থাকতে হয় মুঠো মুঠো ওষুধ সেবন ও বিভিন্ন শারীরিক অক্ষমতা নিয়ে। তার পরও ভয় থাকে পুনরায় রোগে আক্রান্ত হওয়ার। প্রতি বছর ১৭ দশমিক ৩ মিলিয়ন বা প্রায় পৌনে দুই কোটি মানুষ মারা যাচ্ছেন এই রোগে।

অন্যদিকে ম্যালেরিয়া, এইচআইভি/এইডস এবং যক্ষ্ণা- এই তিনটি রোগ মিলে প্রতি বছর গোটা বিশ্বে মারা যাচ্ছেন ৩৮ লাখ মানুষ। অথচ এ তিনটি রোগকেই ভয়ঙ্করভাবে উপস্থাপন করা হয়ে থাকে। পক্ষান্তরে হৃদরোগের ভয়াবহতার ব্যাপারে ব্যাপক প্রচারণা অনুপস্থিত। তাই বিশ্ব হার্ট দিবসে গোটা বিশ্বেই এ বিষয়টির প্রচারণার সুযোগ গ্রহণ করে থাকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

মূলত হৃদরোগ প্রতিরোধ এবং নিয়ন্ত্রণের ওপরেই জোর দেওয়া হয়ে থাকে। এ জন্য পরিবারকে গুরুত্বপূর্ণ ধরা হয়। পরিবারের অভিভাবকবৃন্দ, বিশেষ করে নারীদের ভূমিকা এক্ষেত্রে বেশি। সন্তানদের ধূমপান থেকে বিরত রাখা, তাদের শারীরিক কর্মকাণ্ডে উৎসাহিত করা, হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায় এমন খাবার (বেশি চর্বিযুক্ত খাদ্য, টিনজাত খাবার ইত্যাদি) এড়িয়ে স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্যগ্রহণে উৎসাহিত করার ওপর বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। নিয়মিত ব্যায়ামও হৃদরোগের ঝুঁকি কমিয়ে আনে। পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে দৈহিক ওজন ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হলে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকখানি কমে আসে। বাংলাদেশের জনসংখ্যার অর্ধেকই নারী, তাই হার্ট সুরক্ষার আন্দোলন ও তৎপরতার বাইরে নারীকে রাখা হলে সেটা হবে আত্মঘাতী। নীরব ঘাতক হৃদরোগ থেকে বাঁচতে হলে গোটা জীবনব্যবস্থায় পরিবর্তন আনতে হবে। বলা যায় সুস্থ হার্ট অর্জন করার জন্য কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করাতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সম্মেলনে অসংক্রামক রোগের ভেতর হৃদরোগকে অন্যতম ভয়াবহ রোগ হিসেবে শনাক্ত করে কর্মসূচি প্রণয়নের কথা বলা হয়েছে। আমরা মনে করি, কর্মসূচি প্রণয়ন তখনই সার্থক হবে, যখন দেশের অপেক্ষাকৃত কম বিত্তবান মানুষ হৃদরোগ প্রতিরোধ ও প্রতিকারের আওতায় আসতে পারবে। এ জন্য জাতিসংঘ সুস্থ জীবন যাপনের জন্য বিষেশত হার্ট সুস্থ থাকার জন্য বিকল্প চিকিৎসা হিসেবে যোগব্যায়ামকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দিয়ে ২১ জুন দিনটিকে বিশ্ব যোগ দিবস হিসেবে পালন করছে। তাই হৃদরোগের বিকল্প চিকিৎসার কথাটিও আমাদের স্মরণে রাখতে হবে। এই বিকল্প চিকিৎসাকে হলিস্টিক চিকিৎসা বলা হয়। হলিস্টিক চিকিৎসা হলো আধুনিক প্রযুক্তি ও প্রাচীনতম প্রাকৃতিক পদ্ধতির আশ্চর্য সমন্বয়। এই চিকিৎসার মূল চাবিকাঠি দুটি- স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্যাভ্যাস এবং ব্যায়াম। রোগীর বয়স এবং রোগের ধরন এবং তার বর্তমান অবস্থার ওপরই নির্ভর করে তার প্রতিদিনের খাদ্যগ্রহণ। আর ব্যায়ামের ব্যাপারটি বিবিধ। তার আগে মন নিয়ন্ত্রণের জন্য চাই সঠিক উপায়ে মেডিটেশন। মানসিক চাপই মানুষের অসুখ ও অশান্তির মূল কারণ। মানসিক চাপ কমানোর বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তার জন্য নিয়মিত সময় দিতে হয়, চর্চা করতে হয় সঠিক নিয়ম মেনে। যোগব্যায়াম, প্রাণায়াম, মেডিটেশন ও নিউরোবিক জিম- প্রত্যেকটিরই নিজস্ব রীতিনীতি আছে। হলিস্টিক চিকিৎসায় সোল-মাইন্ড-বডি বা আত্ম-মন-দেহ সবকিছুর ওপরেই লক্ষ্য রেখে প্রোগ্রাম দেওয়া হয়। সংক্ষেপে বলতে পারি হলিস্টিক চিকিৎসা ইতিমধ্যে দেশে আস্থা অর্জন করেছে। বর্তমানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হৃদরোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণের ওপর বিশেষ জোর দিচ্ছে। বাংলাদেশে এই কাজটিই করে আসছি আমরা।হার্টের চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল বলে দেশের শতকরা নব্বইজনের পক্ষেই চিকিৎসা করানো সম্ভব হয় না। তা ছাড়া অধিকাংশ মানুষই থাকে গ্রামে। সর্বত্র যোগাযোগের ব্যবস্থাও উন্নত নয়। ফলে হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিকে হাসপাতালে নেওয়ার আগেই মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটে থাকে। তাই ’হার্ট অ্যাটাক হওয়ার আগেই অ্যাটাক করুন হার্ট অ্যাটাককেই’। অর্থাৎ হার্টকে রাখুন সুস্থ ও সবল। আমরা অবশ্যই হৃদয়ের কথা শুনবো। ফিরে তাকাবো নিজের ও প্রিয়জনের হার্টের সুস্থতার দিকে।

হার্ট সুস্থ রাখার জন্য যা যা করা দরকার তা করতে সচেষ্ট হবো। প্রচলিত চিকিৎসার পাশাপাশি বিকল্প চিকিৎসার দিকটিও আমাদের তুলে ধরতে হবে। মধ্যবিত্ত, অসচ্ছল এবং দরিদ্র হৃদরোগীরা যাতে যথাযথ চিকিৎসার বাইরে না থেকে যায় সেটাই প্রধান বিবেচ্য।

 

Facebook Comments

" লাইফ স্টাইল " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ